ব্রেকিং:
মাওলানা ত্বহার হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইভার অন; বন্ধ মোবাইল ফোন কে এই মাওলানা ত্বহার ২য় স্ত্রী সাবিকুন নাহার? আওয়ামীলীগের ধর্মীয় উন্নয়নকে ব্যাহত করতে ত্বহা ষড়যন্ত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা ফেনীতে করোনার নমুনা সংগ্রহ করবে স্বাস্থ্যকর্মীরা ফেনীর বিভিন্নস্থানে মোবাইল কোটের অভিযান : ১৪ জনের দন্ড ফেনীতে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌছে দিয়েছে ছাত্রলীগ করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের ফেনীর ৭ সরকারি কলেজের একদিনের বেতন ত্রাণ তহবিলে ফেনী ধলিয়ায় গ্রাম পুলিশের বাড়িতে হামলা, আহত ২ মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? ফেনীতে বাড়তি দামে পণ্য বেচায় ৭ দোকানের জরিমানা দেশে করোনায় আক্রান্ত প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার, একদিনে মৃত্যু ৫ যুক্তরাষ্ট্রে করোনা জয় করলেন ১ লাখেরও বেশি মানুষ ফেনীতে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ফেনী শহরে ইমাম-মুয়াজ্জিনদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান ফেনীতে ডাক্তারদের সুরক্ষা ও রোগীদের চিকিৎসা সামগ্রী দিয়েছে বিএমএ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো
  • বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৫ ১৪৩১

  • || ০৮ শাওয়াল ১৪৪৫

করোনা নিয়ে জামায়াতের ভূমিকা শূন্য, সমালোচনা তুঙ্গে

ফেনীর হালচাল

প্রকাশিত: ১৫ এপ্রিল ২০২০  

যুদ্ধাপরাধের দায়ে আদালত কর্তৃক নিষিদ্ধ হলে অনেকটা ‘গায়ের জোরে’ নিজেদের রাজনৈতিক দল বিবেচনা করে জাতীয় বিভিন্ন ইস্যুতে বিবৃতি দিলেও করোনা সংকটে জামায়াতের কোন কর্মকাণ্ড চোখে পড়ছে না। দলগত তো নেই এমনকি ব্যক্তিগত পর্যায়েও জামায়াত নেতাদের করোনাকালে দেখা মিলছে না। দলটির পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত দরিদ্র জনগণের মাঝে খাদ্য ও অন্যান্য সামগ্রী বিতরণের কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। যার কারণে দলটির অভ্যন্তরে চলছে নানা সমালোচনা।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রের বরাতে করোনা নিয়ে জামায়াতের এমন নীরব ও অস্বস্তিকর ভূমিকার বিষয়ে জানা গেছে।

জামায়াত ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র বলছে, করোনা সংকট নিয়ে ক্ষমতাসীন দলসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো সাধ্য অনুযায়ী জনগণের পাশে দাঁড়ালেও জামায়াতের মধ্যে মতবিরোধের কারণে এই ইস্যুতে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। দলটির একটি অংশ বলছে, পরিস্থিতি যদি আরো বিগড়ে যায় তবে জামায়াত জনগণের পাশে দাঁড়াবে। তবে দলটির সংস্কারপন্থী একটি অংশ বলছে, করোনায় জনগণের পাশে দাঁড়ানোর উপযুক্ত সময় এখনই। তবে ফান্ড স্বল্পতার কারণে তারা জনগণের পাশে দাঁড়াতে পারছে না। আবার জামায়াতের একটি কট্টরপন্থী অংশ বলছে ভিন্ন কথা। তাদের মতে, দলের বিপদে যেহেতু জনগণ দাঁড়ায়নি, তাই তাদের বিপদে না দাঁড়িয়ে সমুচিত জবাব দেয়া যায়। সব মিলিয়ে করোনা পরিস্থিতিতে জামায়াতের এমন বিক্ষিপ্ত অবস্থানের কারণে দলটির অভ্যন্তরে চলছে নানা জল্পনা। দলগতভাবে না হলেও ব্যক্তি পর্যায়ে যারা সামর্থবান আছেন, তাদেরকে একাধিকবার তাগিদ দেয়া হলেও তারা কথা কানে তুলছেন না। করোনা নিয়ে আপাতত তাই কোন করণীয় নেই জামায়াতের।

এদিকে করোনা সংকটে জামায়াতের দৃশ্যমান কোন কার্যক্রম নেই কেন, এমনটা জানতে চাওয়া হলে দলটির কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরোয়ার বলেন, কারোনায় করণীয় ঠিক করতে আমরা নেতাদের মতামত চেয়েছি। কিন্তু মতবিরোধের কারণে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। তবে অচিরেই হয়তো আমরা জনগণের পাশে দাঁড়াতে পারব। সেজন্য কিছুটা সময় দরকার। কারণ ফান্ড গঠন করতে হবে, এছাড়া আরো কিছু জটিলতা রয়েছে। সেগুলো কাটিয়ে উঠতে সময় লাগবে আমাদের। দেশবাসীকে তাই আপাতত ধৈর্য ধরতে হবে।

 

ফেনীর হালচাল
ফেনীর হালচাল