ব্রেকিং:
মাওলানা ত্বহার হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইভার অন; বন্ধ মোবাইল ফোন কে এই মাওলানা ত্বহার ২য় স্ত্রী সাবিকুন নাহার? আওয়ামীলীগের ধর্মীয় উন্নয়নকে ব্যাহত করতে ত্বহা ষড়যন্ত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা ফেনীতে করোনার নমুনা সংগ্রহ করবে স্বাস্থ্যকর্মীরা ফেনীর বিভিন্নস্থানে মোবাইল কোটের অভিযান : ১৪ জনের দন্ড ফেনীতে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌছে দিয়েছে ছাত্রলীগ করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের ফেনীর ৭ সরকারি কলেজের একদিনের বেতন ত্রাণ তহবিলে ফেনী ধলিয়ায় গ্রাম পুলিশের বাড়িতে হামলা, আহত ২ মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? ফেনীতে বাড়তি দামে পণ্য বেচায় ৭ দোকানের জরিমানা দেশে করোনায় আক্রান্ত প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার, একদিনে মৃত্যু ৫ যুক্তরাষ্ট্রে করোনা জয় করলেন ১ লাখেরও বেশি মানুষ ফেনীতে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ফেনী শহরে ইমাম-মুয়াজ্জিনদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান ফেনীতে ডাক্তারদের সুরক্ষা ও রোগীদের চিকিৎসা সামগ্রী দিয়েছে বিএমএ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো
  • শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৭ ১৪৩১

  • || ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

ডাকসু: ছাত্রীরা যেদিকে, বিজয় সেদিকে

ফেনীর হালচাল

প্রকাশিত: ১০ মার্চ ২০১৯  

২৮ বছর ধরে বন্ধ থাকা ডাকসু নির্বাচনকে ঘিরে জাতীয় নির্বাচনের মতোই আবহ তৈরি হয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের শিক্ষার্থীদের মন বোঝা মুশকিল তাই প্রার্থীরা আছেন মহা টেনশনে। তবে ক্যাম্পাসে এখন একটাই আলোচনা- ছাত্রীরা যেদিকে, বিজয় সেদিকে। 

সব দল মনে করে পাঁচটি ছাত্রী হলের ১৬ হাজারের অধিক ভোটার এবার ডাকসুর ফল নির্ধারণে বড় ভূমিকা রাখবে। ছাত্র হলগুলোতে ছাত্রলীগ প্রভাব তৈরি করতে পারলেও ছাত্রীদের নিয়ে শঙ্কায় আছে। কয়েকটি হলে ছাত্রলীগের প্যানেল ভোট চাইলে ছাত্রীরা সরাসরি ভোট দেবেন না বলেও জানিয়ে দেন।   

পাঁচটি ছাত্রী হলে আবাসিক-অনাবাসিক মিলিয়ে আছেন প্রায় ১৬ হাজার শিক্ষার্থী। হলে থাকেন ৯ হাজারের মতো, বাকি ৬ হাজার থাকেন হলের বাইরে। হলে থাকেন এমন ছাত্রীদের মধ্যে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ প্রত্যক্ষভাবে দলীয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এই হিসেবে ১৬ হাজার ছাত্রীর মধ্যে দেড় হাজারও সরাসরি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নয়।

ভোটার তালিকা অনুযায়ী, রোকেয়া হলে ভোটার ৪,৫৩০, শামসুন্নাহার হলে ৩,৭৩৭, সুফিয়া কামাল হলে ৩,৭১০, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা হলে ২,২৪৪ এবং কুয়েত মৈত্রী হলে ১৯২০ জন ভোটার। অনাবাসিক ছাত্রীদের মধ্যে দলীয় রাজনীতিতে সক্রিয় নেই বললেই চলে। সুতরাং ভোটের ফল নির্ধারণে ছাত্রীরা যে গুরুত্ব ভূমিকা রাখবে এতে কোন সন্দেহ নাই।  

এছাড়া ফল নির্ধারণে আরো ভূমিকা রাখবে ১৩টি ছাত্র হলের অনাবাসিক শিক্ষার্থীরা। যারা সরাসরি কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত নয়। এর সঙ্গে আছে অঞ্চলভিত্তিক রাজনীতি। এর বাইরে টিএসসিভিত্তিক সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরাও ভোটের ফল নির্ধারণে ভূমিকা রাখবে।  

এদিকে ১৩টি ছাত্র হলে আবাসিক-অনাবাসিক ছাত্রের সংখ্যা ২৯ হাজারের কাছাকাছি। এর মধ্যে ১৫ হাজার ছাত্র হলে থাকেন, বাইরে থাকেন ১৪ হাজার। আবাসিক-অনাবাসিক ছাত্রদের মধ্যে বড়জোর ১০-১২ হাজার ছাত্র দলীয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। বাকি ১৫ হাজার দলীয় রাজনীতির বাইরে। সব মিলিয়ে ২৮ হাজার ছাত্রছাত্রীই প্রত্যক্ষভাবে কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত নয়। এই নিরব ভোটার নিয়েই শঙ্কায় আছে সব দল বিশেষ করে ছাত্রলীগ।   

কেন্দ্রীয় ও হল সংসদ মিলিয়ে প্রার্থী রয়েছেন ৭৩৮ জন। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় সংসদে ২৫ পদের বিপরীতে ২২৯ জন এবং হল সংসদে ১৩টি করে ২৩৪ পদের বিপরীতে প্রার্থী ৫০৯ জন। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় সংসদে ভিপি পদে ২১ জনের মধ্য থেকে একজন, জিএস পদে ১৪ জনের মধ্য থেকে একজন এবং এজিএস পদে ১৩ জন থেকে একজনকে প্রতিনিধি হিসেবে বেছে নেবেন শিক্ষার্থীরা।

এর বাইরে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক পদে ১১, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক পদে ৯, কমনরুম ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদে ৯, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক পদে ১১, সাহিত্য সম্পাদক পদে ৮, সংস্কৃতি সম্পাদক পদে ১২, ক্রীড়া সম্পাদক পদে ১১, ছাত্র পরিবহন সম্পাদক পদে ১০, সমাজসেবা সম্পাদক পদে ১৪ জন থেকে একজন করে এবং সদস্য পদে ৮৬ জন থেকে ১৩ জনকে বেছে নেবেন ভোটাররা।

১৮টি হল সংসদে ১৩টি করে ২৩৪টি পদ রয়েছে। আর এই পদের বিপরীতে প্রার্থী রয়েছেন ৫০৯ জন। গড়ে প্রায় ২৯ প্রার্থী রয়েছেন একেকটি হলে। অর্থাৎ হল সংসদে প্রতিনিধি নির্বাচনের জন্য একজন শিক্ষার্থীকে ২৯ জনের মধ্য থেকে ১৩ জনকে বেছে নিতে হবে।

ফেনীর হালচাল
ফেনীর হালচাল