ব্রেকিং:
মাওলানা ত্বহার হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইভার অন; বন্ধ মোবাইল ফোন কে এই মাওলানা ত্বহার ২য় স্ত্রী সাবিকুন নাহার? আওয়ামীলীগের ধর্মীয় উন্নয়নকে ব্যাহত করতে ত্বহা ষড়যন্ত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা ফেনীতে করোনার নমুনা সংগ্রহ করবে স্বাস্থ্যকর্মীরা ফেনীর বিভিন্নস্থানে মোবাইল কোটের অভিযান : ১৪ জনের দন্ড ফেনীতে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌছে দিয়েছে ছাত্রলীগ করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের ফেনীর ৭ সরকারি কলেজের একদিনের বেতন ত্রাণ তহবিলে ফেনী ধলিয়ায় গ্রাম পুলিশের বাড়িতে হামলা, আহত ২ মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? ফেনীতে বাড়তি দামে পণ্য বেচায় ৭ দোকানের জরিমানা দেশে করোনায় আক্রান্ত প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার, একদিনে মৃত্যু ৫ যুক্তরাষ্ট্রে করোনা জয় করলেন ১ লাখেরও বেশি মানুষ ফেনীতে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ফেনী শহরে ইমাম-মুয়াজ্জিনদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান ফেনীতে ডাক্তারদের সুরক্ষা ও রোগীদের চিকিৎসা সামগ্রী দিয়েছে বিএমএ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো
  • মঙ্গলবার   ২৯ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৫ ১৪২৯

  • || ০৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সোনাগাজীতে ভ্রাম্যমান আদালত এলেই দাম কমে, চলে গেলে বেড়ে যায়

ফেনীর হালচাল

প্রকাশিত: ২৫ মার্চ ২০২০  

সোনাগাজীতে ভ্রাম্যমান আদালত দেখলে দাম কমে আবার ভ্রাম্যমান আদালত চলে গেলে দাম বাড়ে। নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপন্য ও সবজির দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ ক্রেতারা। বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের সংক্রমনের অযুহাতে খাদ্যপণ্যের বাজার বেসামাল হয়ে ওঠেছে। গত কয়েক দিনে আলু, গাজর, পেয়াজ, রসুন, টমেটো, শসা, কাচা মরিচ, ঢেঁড়শ, বেগুন, বরবটি, শিম, করলা, আকরি, কচুর চড়ার দাম কেজিতে ৫-১০টাকা বেড়েছে। ক্রেতাদের অভিযোগ বাজার সঠিকভাবে তদারকি না থাকায় প্রতি পণ্যের দাম বাড়িয়ে নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীদের দাবি করোনাভাইরাসের কারনে পণ্যের সরবরাহ কম। পাইকারী বাজার থেকে তারা বেশি দামে পণ্য ক্রয় করেছেন।
ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারনে পণ্য পরিবহনে খরচ বেড়ে যাওয়ায় ঠিকমত পণ্যের সরবরাহ হচ্ছে না। তাই পণ্যের কিছুটা দাম বেড়েছে। তবে ব্যবসায়ীদের সব কথার সত্যতার মিল পাওয়া যায়নি। সোনাগাজী পৌর বাজারসহ উপজেলার কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে সব বাজারেই নিত্যপণ্যের সরবরাহ মোটামুটি ঠিকই আছে। তাঁর পরও করোনাভাইরানের অযুহাত দেখিয়ে নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে গেছে।
সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সব ধরনের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম ৫-১০টাকা বেড়ে গেছে। ব্যবসায়ীরা জানায় পাইকারী বাজারে প্রত্যেক পণ্যের দাম বাড়ায় তারাও বাড়িছেন।
সোনাগাজী পৌর বাজার, বক্তারমুন্সি বাজার, মতিগঞ্জ, আমির উদ্দিন মুন্সির হাট, রিয়াজ উদ্দিন মুন্সির হাট, সোনাপুর, ওলামাবাজার, জমদার বাজার, কারামতিয়া বাজার, কাজীর হাট ও কুঠিরহাটসহ আরও বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে নিত্যপণ্যে একই চিত্র দেখা গেছে।
সোনাগাজী পৌর বাজারে বাজার করতে আসা সাইফুল আলম নামের এক ব্যক্তি জানান, গতমাসে তিনি ৫০ কেজি মোটা চাল ১ হাজার ৫শ’ ৫০ টাকায় কিনেছেন। সে চাল গতকাল তাকে দুই হাজার টাকায় কিনতে হয়েছে। প্রশাসনের তদারকি থাকার পরও ব্যবসায়ীরা তাদের ইচ্ছে মত খাদ্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে নিচ্ছেন।
পৌরশহরের এক মিষ্টি ব্যবসায়ী জানান, গত শনিবার তিনহাজার টাকা দিয়ে তিনি ৫০ কেজির একবস্তা চিনি কিনেছেন। সে চিনি গতকাল তিনি সাড়ে তিনহাজার টাকায় কিনেছেন।
নাম প্রকাশে অনিশ্চুক এক বিক্রেতা বলেন, পাইকারী বাজার থেকে তাদেরকে প্রতিটি পণ্য আগের চেয়ে কেজি প্রতি ৫-৭টাকা বেশি দামে ক্রয় করতে হয়েছে। ফেনীর পাইকারী বাজার থেকে সোনাগাজী পৌর বাজার পর্যন্ত গাড়ী ভাড়া ছিল সাতশ টাকা। এখন ওই বাজার থেকে পণ্য আনতে একহাজার টাকা গাড়ী ভাড়া দিতে হয়েছে।
এ ব্যাপারে সোনাগাজী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নুর নবী প্রথম আলোকে বলেন, কিছু অসাধুর ব্যবসায়ী কোন একটা অযুহাত ফেলে পণ্যের দাম বাড়ি দেয়। প্রশাসনিক তদারকি দেখামাত্র তারা দোকানে পণ্যের মূল্য তালিকার বোর্ড সামনে এনে রাখেন। আবার প্রশাসনের কর্মকর্তারা চলে গেলে পূর্বের ন্যায় বেশি দামে পণ্য বিক্রি করে থাকে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অজিত দেব বলেন, প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বাজারগুলো পরিদর্শন করে নিত্যপণ্যের দাম ঠিক রাখার লক্ষে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। গত কয়েকদিনে পৌর শহরসহ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে দ্রব্যমূল্যে দাম বাড়ানোর অভিযোগে প্রায় ৩০-৩৫জন ব্যবসায়ীর জরিমানা করা হয়েছে। এরপরও সুনিদিষ্ট অভিযোগ পেলে আবারও অভিযান চালানো হবে এবং ক্রেতা সেজে আমাদের টিমও কাজ করছে।

ফেনীর হালচাল
ফেনীর হালচাল