ব্রেকিং:
মাওলানা ত্বহার হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইভার অন; বন্ধ মোবাইল ফোন কে এই মাওলানা ত্বহার ২য় স্ত্রী সাবিকুন নাহার? আওয়ামীলীগের ধর্মীয় উন্নয়নকে ব্যাহত করতে ত্বহা ষড়যন্ত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা ফেনীতে করোনার নমুনা সংগ্রহ করবে স্বাস্থ্যকর্মীরা ফেনীর বিভিন্নস্থানে মোবাইল কোটের অভিযান : ১৪ জনের দন্ড ফেনীতে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌছে দিয়েছে ছাত্রলীগ করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের ফেনীর ৭ সরকারি কলেজের একদিনের বেতন ত্রাণ তহবিলে ফেনী ধলিয়ায় গ্রাম পুলিশের বাড়িতে হামলা, আহত ২ মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? ফেনীতে বাড়তি দামে পণ্য বেচায় ৭ দোকানের জরিমানা দেশে করোনায় আক্রান্ত প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার, একদিনে মৃত্যু ৫ যুক্তরাষ্ট্রে করোনা জয় করলেন ১ লাখেরও বেশি মানুষ ফেনীতে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ফেনী শহরে ইমাম-মুয়াজ্জিনদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান ফেনীতে ডাক্তারদের সুরক্ষা ও রোগীদের চিকিৎসা সামগ্রী দিয়েছে বিএমএ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো
  • শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৭ ১৪৩১

  • || ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

খাদ্য সামগ্রী পাঠানো হয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য

ফেনীর হালচাল

প্রকাশিত: ১৬ এপ্রিল ২০২০  

করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সংকট মোকাবিলায় মালদ্বীপে ১০০ মেট্রিক টন খাদ্য ও ওষুধ সামগ্রী পাঠিয়েছে বাংলাদেশ। এমন একটি সংবাদ ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।এমন খবরে অনেকেই সরকারের সমালোচনা করে বলছেন, নিজের দেশের চলমান সংকটে মালদ্বীপে খাদ্য সামগ্রী পাঠানো অনুচিত হয়েছে।

মূলত মালদ্বীপে খাদ্য সামগ্রী পাঠানোর সংবাদটি আংশিক সত্য। পুরো সত্য হচ্ছে মালদ্বীপ সরকারকে নয় বরং দেশটিতে অবস্থানরত ‘প্রবাসী বাংলাদেশীদের’ সাহায্যে খাদ্য ও ওষুধ সামগ্রী পাঠিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের প্রজ্ঞাপন বরাত এমন তথ্যের সত্যতা পাওয়া গিয়েছে।

উক্ত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, মালদ্বীপে অবস্থানরত অভিবাসী বাংলাদেশী কর্মীদের কোভিড-১৯ এর পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ভূত মানবেতর পরিস্থিতি লাঘবে ত্রাণসামগ্রী প্রেরণ করা হয়েছে। প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এ বিষয়ে উপনীত হওয়া যায় যে, মালদ্বীপের জনগণের উদ্দেশে নয়, মূলত প্রবাসী বাংলাদেশীদের সহায়তার জন্যই খাদ্য ও ওষুধ সামগ্রী পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষক বিভুরঞ্জন সরকার বলেন, সম্পূর্ণ তথ্য যাচাই বাছাই না করে, এক শ্রেণির মানুষ সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলার জন্য উঠে পড়ে লেগে থাকে। এটা খুবই দুঃখজনক। একটি ব্যাপার জেনে রাখা ভালো যে, কুয়েত এবং মালদ্বীপে খাদ্য সামগ্রী পাঠানোর পেছনে কূটনৈতিক কারণ আছে। এ দেশগুলোতে প্রচুর বাংলাদেশি থাকে। তাদের সহায়তায় এ খাদ্য সামগ্রী পাঠানো হচ্ছে। দরকার হলে এমন আরো দেশেও পাঠানো হবে। দেশগুলো এমন পরিস্থিতিতে যার যার দেশের নাগরিকদের তার তার দেশে ফিরিয়ে নেবার জন্য সরকারকে চাপ দিচ্ছে। সরকার সেই চাপ সামাল দেয়ার চেষ্টা করছে। অথচ কিছু মানুষ না বুঝেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়াচ্ছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক এ আরাফাত বলেন, কিছু মানুষ না বুঝে সবসময় সরকারের সমালোচনা করতে ব্যস্ত থাকে।পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কর্মরত প্রবাসীরাও কিন্তু বাংলাদেশের নাগরিক। বিপদের দিনে তাদের পাশে দাঁড়ানো এই সরকারের দায়িত্ব। আর দায়িত্ববোধ থেকে সরকারের এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ যৌক্তিক।

উল্লেখ্য, এর আগেই করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মালদ্বীপের সঙ্গে একসঙ্গে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল বাংলাদেশ। করোনা মোকাবেলায় দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর নেয়া উদ্যোগে সার্ক ফান্ডে দেড় মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশ। যা ঘুরে ফিরে বাংলাদেশের উপকারেই আসবে। ফলে না বুঝে, গুজব ছড়িয়ে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না করার আহ্বান জানিয়েছেন বিশিষ্টজনরা।

ফেনীর হালচাল
ফেনীর হালচাল